ইংরেজি বলতে না পারায় ১০ লাখ টাকা জিতে নিলেন সোকোলোভা।

লাটভিয়ার নাগরিক আলবিনা সোকোলোভা এক দশক আগে যুক্তরাজ্যে যায়। তিনি যাওয়ার পরপরই ২০১০ সালে হামডিংগার লিমিটেডের হাল কারখানায় চাকরি পান। তিনি সেখানে প্রায় ১০ বছর ধরে কাজ করেন। কাজ শুরুর ৫ বছর পর ওই কোম্পানি কর্মক্ষেত্রে ইংরেজি বলা বাধ্যতামূলক বলে ঘোষণা করে। এমনকি মধ্যাহ্নভোজনসহ অন্য সময়ও ইংরেজি ছাড়া অন্য ভাষায় কথা বলা যাবে না।

তবে সোকোলোভা ইংরেজিতে কথা বলতে পারতো না। তাই তিনি নিজের আঞ্চলিক ভাষায় কথা বলবেন বলে গো ধরে বসে থাকেন। এমনকি কোম্পানির বসের সঙ্গে মিটিংয়েও অনুবাদক নিতে অস্বীকৃতি জানান। আর তা নিয়ে কোম্পানির সঙ্গে সোকোলোভার দ্বন্দ্ব শুরু হয়। সে দ্বন্দ্ব গড়ায় আদালত পর্যন্ত। সোকোলোভা আদালতে কোম্পানির বিরুদ্ধে বর্ণবাদের অভিযোগ করেন। আর সেই অভিযোগের ভিত্তিতে বাংলাদেশি টাকায় ১০ লাখ টাকা জিতে নিলেন সোকোলোভা।

জানা যায়, সোকোলোভাকে নিজের আঞ্চলিক ভাষায় কথা বলার জন্য একঘরে করা হয়। অথচ তার সহকর্মী যারা পূর্ব ইউরোপিয়ান তাদের সোকোলোভার ভাষা নিয়ে কোনো অভিযোগ ছিল না। এমনকি তার তত্ত্বাবধায়কও তার ভাষা নিয়ে কোনো রকম অভিযোগ করেননি।

লাটভিয়ান সোকোলোভাকে রাশিয়ান বলেও বিবেচনা করা হয়। তিনি রাশিয়ান ভাষাকেই মাতৃভাষা বলে দাবি করেন। বাড়িতে ইংরেজিতে অনুবাদের কাজ চালানোর জন্য তিনি তার মেয়ের উপর নির্ভর করেছিলেন। তবে বসের সঙ্গে বৈঠকের সময় বাইরের কোনো অনুবাদককে ভরসা করতে চাননি তিনি।

আর এই নিয়ে কোম্পানির সঙ্গে চরম দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েন সোকোলোভা। বিষয়টি নিয়ে কর্মসংস্থান ট্রাইব্যুনালে বর্ণবাদের মামলা করেন তিনি। সে মামলায় তিনি অভিযোগ করেন, কর্মক্ষেত্রের বিভিন্ন সভায় আঞ্চলিক ভাষায় কথা বলতে না পেরে তিনি ‘সুবিধাবঞ্চিত’ ছিলেন। তিনি আরো অভিযোগ করেন, সুষ্ঠুভাবে কাজ করার জন্য সেখানে ইংরেজিতে কথা বলা খুব বেশি প্রয়োজনীয় ছিল না।

ট্রাইব্যুনালকে সোকোলোভা আরো বলেন, ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে কোম্পানির কর্তাব্যক্তিদের সঙ্গে বৈঠকের সময় তাকে কোম্পানির নিয়ম-নীতি ভঙ্গের জন্য দায়ী করে শোকজ করা হয়। এমনকি তার বিরুদ্ধে ‘লেটার অব কনসার্ন বা উদ্বেগের চিঠি’ জারি করে সেই চিঠিতে তাকে ইংরেজিতে ‘উন্নতি’ করার নির্দেশনা দেয়া হয়।

তার অভিযোগের প্রেক্ষিতে ট্রাইব্যুনাল হামডিংগার লিমিটেডকে পরোক্ষ জাতি বৈষম্য এবং জাতিগত অনুভূতিকে আঘাতের অভিযোগে মিসেস সোকোলোভাকে ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার রায় দেয়।

সূত্র : ডেইলি মেইল

About admin

Check Also

যেসব কারণে আজীবনের জন্য বহিষ্কার হলেন মেয়র জাহাঙ্গীর

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্যের অভিযোগে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র ও …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *